[x]
[x]
ঢাকা, শনিবার, ৮ বৈশাখ ১৪২৫, ২১ এপ্রিল ২০১৮

bangla news

বাজারে সবজি পর্যাপ্ত থাকলেও দাম চড়া

শেখ জাহিদুজ্জামান,স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৪-২১ ১২:০৮:৪৭ পিএম
আমদানি থাকলেও চড়া সবজির বাজার-ছবি: বাংলানিউজ

আমদানি থাকলেও চড়া সবজির বাজার-ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: রাজধানীর সবজির বাজারগুলোতে সবজির যথেষ্ট আমদানি থাকলেও চড়া দামেই বিক্রি হচ্ছে সবজি। এনিয়ে ক্রেতারা অসন্তোষ প্রকাশ করলেও বিক্রেতারা বলছেন,বেশি দামে ক্রয় করার কারণেই চড়া দামে সবজি বিক্রি করতে হচ্ছে।

শুক্রবার ( ২১ এপ্রিল) সকালে রাজধানীর কাওরানবাজার,রামপুরা বাজার ও নতুন বাজার ঘুরে দেখা গেছে,গত সপ্তাহের চেয়ে প্রায় সব সবজিতে কেজি প্রতি দাম বেড়েছে ৫-১০ টাকা।

কাওরানবাজারে ৫ টাকা বেড়ে সাদা বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়, কালো বেগুন বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। শিম কেজি প্রতি ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৫৫ টাকায়। শশা বিক্রি হচ্ছে ৪০ টাকায়, যা গত সপ্তাহে ছিলো ৩০-৩৫ টাকা। কেজিতে ১০টাকা বেড়ে গাজর বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকায়। ৭ টাকা বেড়ে পটল কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়। করলা বিক্রি হচ্ছে ৬০ টাকা কেজিতে। গত সপ্তাহের তুলনায় করলা দাম বেড়েছে ৫ টাকা। কাকরোল ও কচুরমুখী কেজিতে ১০ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৫ টাকায়। পেঁপে বিক্রি হচ্ছে ৫০ টাকায় যা গত সপ্তাহে ছিলো ৪০-৪৫ টাকা। মিষ্টি কুমড়া প্রতি কেজি বিক্রি হচ্ছে ২৫ টাকায়। গত সপ্তাহের তুলনায় দাম ৫ টাকা বেশি। ৫ টাকা কেজিতে বেড়ে টমেটো ৩০ টাকা ও ঢেঁড়স ৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

এছাড়া মরিচ প্রতি কেজি ৪০ টাকা, আলু ২০ টাকা, লেবু হালি প্রতি ২০-৩০ টাকা, পালং শাক, লালশাক, পুঁইশাক আঁটি প্রতি ১৫-২০ টাকা, দেশি পেঁয়াজ কেজি প্রতি ২৮ টাকা, ভারতীয় পেঁয়াজ ২৫ টাকা, দেশি রসুন ১০০ টাকা,  চীনা রসুন ১৮০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। এগুলো মোটামুটি গত সপ্তাহের দামেই বিক্রি হচ্ছে।

সবজির দাম বাড়ার বিষয়ে কারওয়ানবাজারে কথা হয় ক্রেতা সাইফুল ইসলামের সঙ্গে। তিনি বাংলানিউজকে বলেন, হুটহাট করে যখন তখন দাম বাড়াটা মোটেও গ্রহণযোগ্য নয়। গত সপ্তাহের চেয়ে আজ ( শুক্রবার) সবজির দাম বেড়েছে। দাম বাড়ার কারণ জানতে চাইলে বিক্রেতারা বলেন, বেশি দামে ক্রয় করলে বেশি দামেই বিক্রি করতে হয়। ফলে বিক্রেতাদের কাছে এক প্রকার জিম্মি হতে হচ্ছে ক্রেতাদের। তবে যেকোনো কিছুর দাম বাড়লে সেটা বাজার মনিটরিং করা প্রয়োজন। তাহলে কিছুটা হলেও অন্তত বাজার নিয়ন্ত্রণে থাকে বলেন তিনি।আমদানি থাকলেও চড়া সবজির বাজার-ছবি: বাংলানিউজ

সবজির দাম বাড়ার বিষয়ে কারওয়ানবাজারের সবজি বিক্রেতা মোবারক বাংলানিউজকে বলেন, আমদানি থাকলেও তাদের বেশি দামে ক্রয় করতে হয়। কখনো বা আবার পাইকাররা হঠাৎ দাম বাড়িয়ে দেন। সবদিনের বাজার তো আর এক যায় না। তারা যেমন ক্রয় করবেন তেমন দামেই বিক্রি করবেন। তবে গত সপ্তাহের তুলনায় আজ (শুক্রবার) সবজির দাম কিছুটা বেড়েছে। এমনও হতে পারে আগামীকাল আবার দাম কমবে- বলেন তিনি।

অন্যদিকে গত সপ্তাহের দামেই ব্রয়লার মুরগি কেজি প্রতি বিক্রি হচ্ছে ১৬০ টাকা, লেয়ার মুরগি ১৮০ টাকা, দেশি মুরগি ৪০০ টাকা, গরুর মাংস  ৪৮০ টাকা ও খাসির মাংস প্রতি কেজি ৭৫০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুদি পণ্যের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বাজারে ৫ লিটারের বোতল ব্র্যান্ড ভেদে ৪৯৫ থেকে ৫০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া প্রতি লিটার ভোজ্য তেল ৯৮ থেকে ১০০ টাকা দরে বিক্রি হচ্ছে।

তবে চালের বাজারেও তেমন কোনো পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায়নি। কেজি প্রতি স্বর্ণা চাল ৪০ টাকা, মিনিকেট ৫২ টাকা, মিনিকেট নরমাল ৪৮ টাকা, বিআর২৮ ৪২-৪৪ টাকা, নাজিরশাইল ৪৫-৪৮ টাকা, বাসমতি ৫৬ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

মাছের বাজার ঘুরে দেখা গেছে, আকার ভেদে প্রতি কেজি রুই মাছ ১৮০-২৫০ টাকা, কাতলা ২৫০-৩০০ টাকা, তেলাপিয়া ছোট ১২০ ও বড় ১৮০ টাকা, সিলভার কার্প ১২০-১৮০ টাকা ও চাষের কৈ আকার ভেদে ২০০-৩৫০ কেজিতে বিক্রি হচ্ছে।

বাংলাদেশ সময়: ১২০৮ ঘণ্টা, এপ্রিল ২১,২০১৭

এসজে/আরআই

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa