Alexa
ঢাকা, বৃহস্পতিবার, ৯ চৈত্র ১৪২৩, ২৩ মার্চ ২০১৭
bangla news
symphony mobile

অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প আনলো অ্যাগ্রি নিউট্রিশন

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৩-০৩ ৪:৫১:০৮ পিএম
ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশনের স্টলে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা। ছবি: কাশেম হারুন

ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশনের স্টলে প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তারা। ছবি: কাশেম হারুন

ঢাকা: পোল্ট্রি, হ্যাচারি বা ডেইরি খামারে বর্তমানে অ্যান্টিবায়োটিক ব্যবহার করা নিষেধ। তবে অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প হিসেবে বাংলাদেশের বাজারে ফাইটোজেনিক গ্রোথ প্রোমোটার নিয়ে এসেছে ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশন-এডি।

প্রতিষ্ঠানটি জার্মানিতে তৈরি দু’টি পণ্য বাংলাদেশের বাজারে এনেছে। যার একটি হচ্ছে অ্যালকাম্যাক্স (ALKAMAX), এটি ব্যবহার হয় শুধু মাছের জন্য। আর অন্যটি হচ্ছে স্যানগ্রোভিট (SANGROVIT), যা ব্যবহার করা যায় পোল্ট্রি বা ডেইরি খামারে।
 
বাংলাদেশের বাজারে অ্যালকাম্যাক্স বাজারজাত করছে ক্যাপাটল (CAPATOL) নামের একটি প্রতিষ্ঠান। আর স্যানগ্রোভিট বাজারজাত করছে ফাইটোবায়োটিকস (PHYTOBIOTICS)।
 
অ্যান্টিবায়োটিকের বিকল্প ওই দু’টি নন অ্যান্টিবায়োটিকই ফাইটোজেনিক দিয়ে তৈরি। যা একেবারে ভেষজের মত প্রাকৃতিকভাবে গাছ-গাছড়ার নির্যাস থেকে প্রস্তুত করা হয়। এতে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই। ফলে অ্যালকাম্যাক্স ব্যবহারে মাছ তাড়াতাড়ি বড় হয়, রোগ কম হয়; সর্বোপরি খামারের উৎপাদন বাড়ে। 
ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশন-এডি‘র স্টলে আগ্রহীদের ভিড়। ছবি: কাশেম হারুনখামারের প্রতি টন খাবারের সঙ্গে ৫০ থেকে ১০০ গ্রাম অ্যালকাম্যাক্স মেশাতে হয়। এজন্য খরচ পড়ে ৪শ’ টাকার মত।
 
আর স্যানগ্রোভিট মোরগ-মুরগীর বা গরুর ওজন তাড়াতাড়ি বৃদ্ধিতে কাজ করে। এর ফলে মুরগী ডিমও দেয় বেশি। এছাড়া মোরগ-মুরগী ও গরুর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে। কেজি প্রতি এর দাম পড়ে ৪ হাজার টাকা। আর প্রতি টনে ৫০ থেকে ১০০ গ্রাম স্যানগ্রোভিট মেশালেই হয়ে যায়।
 
এদিকে প্রতিষ্ঠানটি খামারের খাবারের জন্য দু’টি ফ্লেভারও এনেছে। ভেনিলা ফ্লেভারটি পোল্ট্রি ও ডেইরির জন্য। আর টুনা মাছের ফ্লেভারটি ফিশারির জন্য। খামারের খাবারে অনেক সময় দুর্গন্ধ থাকে, যা মাছ, গরু বা মোরগ-মুরগী খেতে চায় না। এক্ষেত্রে ফ্লেভার মেশালে খাবার খাওয়ানোর কোনো ঝামেলা থাকে না।
 
পণ্যগুলো নিয়ে ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশন চলমান দশম আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো অ্যান্ড সেমিনারে একটি প্রদর্শনী চালাচ্ছে। তিন দিনব্যাপী আন্তর্জাতিক পোল্ট্রি শো অ্যান্ড সেমিনারটি রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এটি শেষ হবে ৪ মার্চ। 
আগ্রহীদের সঙ্গে কথা বলছেন ইন্টিগ্রেটেড অ্যাগ্রি নিউট্রিশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হোসাইন। ছবি: কাশেম হারুনপ্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব হোসাইন বাংলানিউজকে জানান, একেবারে কোনো ক্যামিক্যাল ছাড়াই গাছ-গাছড়ার নির্যাস থেকে সংগ্রহ করা হয় ফাইটোজেনিক গ্রোথ প্রোমোটার। এতে কোনো পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া নেই।
 
ফাইটোবায়োটিকস’র সেলস ও মার্কেটিংয়ের পরিচালক (এশিয়া) থাওয়াচি পোলসাওয়াত বাংলানিউজকে বলেন, খামারিদের জন্য সুখবর যে, এই ধরনের অল্টারনেটিভ অ্যান্টিবায়োটিক বাংলাদেশে পাওয়া যাচ্ছে। এটা সম্পূর্ণ জার্মানির তৈরি।
 
আর ক্যাপাটলের নির্বাহী পরিচালক সনাতন ঘোষ জানান, বাংলাদেশ এই ধরনের নন অ্যান্টিবায়োটিক বা অল্টারনেটিভ অ্যান্টিবায়োটিক আর কোনো প্রতিষ্ঠানের নেই।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৬৪৫ ঘণ্টা, মার্চ ০৩, ২০১৭
ইইউডি/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..