Alexa
ঢাকা, রবিবার, ১২ চৈত্র ১৪২৩, ২৬ মার্চ ২০১৭
bangla news
symphony mobile

পুঁজিবাজারে ছন্দে ফিরছে ব্যাংক খাত

মাহফুজুল ইসলাম, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৬-১০-০৯ ৮:৩৭:১৩ এএম

দীর্ঘ ছয় বছর ঝিমিয়ে থাকার পর এবার পুঁজিবাজারে ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে ব্যাংক ও আর্থিক খাতের কোম্পানির শেয়ার। এর ফলে সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে ব্যাংক খাতে লেনদেন বেড়েছে ২ দশমিক ২৭ এবং আর্থিক খাতে বেড়েছে ৩ দশমিক ৫৬ শতাংশ। পাশাপাশি বেড়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

ঢাকা: দীর্ঘ ছয় বছর ঝিমিয়ে থাকার পর এবার পুঁজিবাজারে ছন্দে ফিরতে শুরু করেছে ব্যাংক ও আর্থিক খাতের কোম্পানির শেয়ার। এর ফলে সর্বশেষ সেপ্টেম্বর মাসে ব্যাংক খাতে লেনদেন বেড়েছে ২ দশমিক ২৭ এবং আর্থিক খাতে বেড়েছে ৩ দশমিক ৫৬ শতাংশ। পাশাপাশি বেড়েছে বেশিরভাগ কোম্পানির শেয়ারের দাম।

ডিএসই সূত্রে এ তথ্য জানা যায়। বাজার সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ব্যাংক ও আর্থিক খাতের শেয়ারের দাম কম থাকায় দেশি বিনিয়োগকারীর পাশাপাশি বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও অংশগ্রহণ করছেন। আর মার্চেন্ট ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের নেগেটিভ ইক্যুইটিতে থাকা ৬ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গড়ে উঠছে এমন খবর বাজারে ‘প্রাণ’ যোগাচ্ছে।

এর ফলে আগস্ট মাসের তুলনায় সেপ্টেম্বর মাসে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ২০টি খাতের মধ্যে প্রায় সব খাতের লেনদেন কমলেও বেড়েছে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানের শেয়ারের দাম।

এদিকে, সেপ্টেম্বর মাসে দেশের প্রধান পুঁজিবাজার ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) মোট ৮ হাজার ৬৮৯ কোটি ৩৮ লাখ ২৩ হাজার ৩৭২ টাকার লেনদেন হয়েছে। এর আগের মাস আগস্টে লেনদেন হয়েছিল ৯ হাজার ৬২৯ কোটি ২৯ লাখ ৫৪ হাজার ২৫৩ টাকার। যা আগস্টের তুলনায় ৯৩৯ কোটি ৯১ লাখ ৩০ হাজার ৮৮১ টাকা কম।

সেপ্টেম্বরে ব্যাংক খাতে তালিকাভুক্ত ৩০টি প্রতিষ্ঠানের মোট ৫১ কোটি ২৮ লাখ ১ হাজার ৯৩১টি শেয়ারের ৯৩৫ কোটি ৪৯ লাখ ৯০ হাজার ৮৯৫ টাকার শেয়ার লেনদেন হযেছে। যা শতাংশে হিসেবে ১০ দশমিক ৭৭ শতাংশ।

এর আগের মাসে ৪৩ কোটি ৪২ লাখ ২০ হাজার ৭১৮টি শেয়ারের মোট ৮০৮ কোটি ৭৪ লাখ ৬৭ হাজার ২৯৫ টাকার লেনদেন হয়েছে। যা শতাংশের হিসেবে ৮ দশমিক ৪০ শতাংশ।

পুঁজিবাজার বিশ্লেষক ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. মিজানুর রহমান বলেন, সঞ্চয়পত্রসহ সার্বিকভাবে ব্যাংকগুলোতে আমানতের সুদ হার কমেছে। এর ফলে ভালো লাভের প্রত্যাশায় বিনিয়োগকারীরা পুঁজিবাজারমুখী হচ্ছেন। তবে বিনিয়োগকারীদের আস্থার সংকট দূর করতে ডিএসই ও সিএসইকে আরও কিছু সংস্কার করতে হবে।

এ বিষয়ে জানতে চাইলে ডিএসই’র পরিচালক শাকিল রিজভী বাংলানিউজকে বলেন, ২০১০ সালের ব্যাংকের শেয়ারের দাম অস্বাভাবিক বেড়েছিল। এতে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন এ খাতের বিনিয়োগকারীরা। তবে এখন অন্য খাতের কোম্পানির তুলনায় ব্যাংক ও আর্থিক খাতের কোম্পানিগুলো ভালো লভ্যাংশ দিচ্ছে। এ কারণে স্বাভাবিকভাবেই এ খাতের শেয়ারের দিকে বিনিয়োগকারীদের নজর পড়েছে।

বর্তমানে ব্যাংক খাতে ৩০টি এবং আর্থিক প্রতিষ্ঠান খাতে ২৩টি কোম্পানির লেনদেন হচ্ছে। চলতি বছরের প্রথম থেকে ব্যাংক খাতের লেনদেনের অবদান ছিল পঞ্চম থেকে ৮ম স্থানে। সেপ্টেম্বরে যা চতুর্থ স্থানে উঠে এসেছে।‍

বাংলাদেশ সময়: ০৮৩৩ ঘণ্টা, অক্টোবর ০৯, ২০১৬
এমএফআই/জেডএস/আইএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..