ঢাকা, মঙ্গলবার, ১১ আশ্বিন ১৪২৪, ২৬ সেপ্টেম্বর ২০১৭

bangla news

সমুদ্রসীমা জয় সম্ভব হয়েছে দক্ষ আইনজীবীদের কারণে

চট্টগ্রাম প্রতিদিন ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৯-১১ ২:১১:৩১ পিএম
সিআইইউর অনুষ্ঠানে অতিথিরা

সিআইইউর অনুষ্ঠানে অতিথিরা

চট্টগ্রাম: দক্ষ আইনজীবীদের কারণে ভারত এবং মিয়ানমারের সাথে বাংলাদেশের সমুদ্রসীমা জয় করা সম্ভব হয়েছে উল্লেখ করে বাংলাদেশ সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট বিভাগের বিচারপতি মো. মুজিবুর রহমান মিয়া বলেন, আইনের শিক্ষার্থীদের আন্তর্জাতিক পর্যায়ে চিন্তা করতে হবে, তাদের ইংরেজিতে দক্ষতা অর্জন জরুরি, কারণ আইনের সব বই ইংরেজিতে লেখা।

সম্প্রতি চিটাগং ইন্ডিপেনডেন্ট ইউনিভার্সিটির (সিআইইউ) আইন অনুষদে ভর্তি হওয়া নতুন শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন তিনি।

বিচারপতি মো. মুজিবুর রহমান বলেন, বাংলাদেশে দক্ষ আইনজীবীদের ক্ষেত্রে বিরাট শূন্যতার সৃষ্টি হয়েছে যা আইনের শিক্ষার্থীদের পূরণ করতে হবে।

বাংলাদেশের গণতন্ত্র রক্ষায় আইনজীবীদের ভূমিকা ছিল উল্লেখ করে তিনি বলেন, আইনের শাসন ছাড়া গণতন্ত্র বিকশিত হতে পারে না, আইনরক্ষকরা ভ্যানগার্ড হিসেবে কাজ করে। বাংলাদেশের স্বাধীনতায় বঙ্গবন্ধুর অবদান স্মরণ করে তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধুর নেতৃত্বে দেশ স্বাধীন না হলে আমাদের অবস্থা রোহিঙ্গাদের মতো হতো।

শিক্ষকদের শুধুমাত্র পুঁথিগত বিদ্যা বা নোট ছাত্রদের তুলে না দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে বিচারপতি বলেন, আমাদের ছাত্রদের গ্লোবালাইজড ছাত্র হিসেবে গড়ে তুলতে হবে। এরকম মাইন্ডসেট ছাত্রদের থাকতে হবে, শিক্ষকদেরও থাকতে হবে।  এখানকার অনেক শিক্ষক আছেন যারা বিদেশে শিক্ষকতা করছে কারণ তারা আইনের প্রতিটি বিষয়ে দক্ষতা অর্জন করেছে।

চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মুন্সী মো. মশিয়ার রহমান বলেন, আইনের ছাত্ররাই বাংলাদেশকে নেতৃত্ব দিচ্ছেন। শিক্ষার্থীদের স্বাগত জানিয়ে তিনি বলেন, আইনের জগৎটা বিশাল। শুধু আইন জানলে হবে না, জ্ঞান-বিজ্ঞানের প্রতিটি শাখায় আপনাকে দক্ষ হতে হবে। না হয় সঠিক সিদ্ধান্ত প্রদানে দক্ষ হবেন না।

তিনি শিক্ষার্থীদের ফেসবুকে সময় কমিয়ে জ্ঞান-বিজ্ঞানের বই অধ্যয়নে মনোযোগী হওয়ার পরামর্শ দেন।

সিআইইউর উপাচার্য ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী বলেন, আইন পেশা খুবই কৌশলী একটি পেশা। সভ্যতার শুরু থেকেই মানুষের বিভিন্ন ধরনের সমস্যা ছিল এবং আছে। যৌক্তিক এবং সৌহার্দ্যপূর্ণ পরিবেশে সেই সমস্যার সমাধান করতে প্রয়োজন আইন। আইন ছাড়া জীবন দূর্বিষহ। একজন নিরপরাধ ব্যক্তিও যাতে শাস্তি না পায় সে ব্যাপারে আইনজ্ঞ এবং আইনের শিক্ষার্থীদের সজাগ থাকা এবং আইনের শিক্ষার্থীদের নিরপেক্ষ থেকে সবকিছু আইনের নিরিখে বিচার করতে হবে।

অনুষ্ঠানে সিআইইউর আইন অনুষদের সমম্বয়ক ও বাংলাদেশ জুডিশিয়াল সার্ভিস কমিশনের সাবেক সদস্য অধ্যাপক অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন বলেন, এখন আইন পেশা অত্যন্ত চ্যালেঞ্জিং। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আইনের ভূমিকা পরিবর্তিত হয়ে গেছে। পশ্চিমা মহাদেশ এগুলোকে মাথায় রেখে তাদের আইন শিক্ষা পরিবর্তন করেছে, ভারতেও হয়েছে, নেপালেও হয়েছে; কিন্তু বাংলাদেশে তেমন কোন পরিবর্তন হয়নি। সিআইইউর আইন অনুষদের সিলেবাসে এমন কিছু আছে তা শুধু বাংলাদেশেই তো নয়, দক্ষিণ এশিয়ার অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়ানো হয় না।

সিআইইউর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফুজুল হক চৌধুরীর সভাপতিত্বে বিশ্ববিদ্যালয় মিলনায়তনে অনুষ্ঠিত পরিচিতিমূলক এ অনুষ্ঠানে সিআইইউ ট্রাস্টি বোর্ড সদস্য প্রকৌশলী আলী আহমেদ বক্তব্য রাখেন। সিআইইউর শিক্ষার্থী মোহাম্মদ ইব্রাহীমের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে জয়েন্ট ডিস্ট্রিক্ট জাজ আব্দুল কাদের, সিআইইউর প্রকৌশল অনুষদের ডিন ড. আরএইচ খান, বাংলাদেশ নেভির ক্যাপ্টেন মাহবুবুর রহমান, বাকম্যান এশিয়া প্যাসিফিকের কান্ট্রি ম্যানেজার মীর আসাদুর রহমান, সিআইইউর শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং আইন অনুষদে শরৎকালীন সেমিস্টারে ভর্তি হওয়া নতুন শিক্ষার্থীরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সময়: ১৪১১ ঘণ্টা, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৭

এমইউ/আইএসএ/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

FROM AROUND THE WEB
Loading...
Alexa