Alexa
ঢাকা, শুক্রবার, ২ ভাদ্র ১৪২৪, ১৮ আগস্ট ২০১৭

bangla news

৯২টি দলের অংশগ্রহণে ১৪ দিনের ‘বিতর্ক যুদ্ধ’ শুরু

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৮-১২ ৭:২৩:০৯ পিএম
৯২টি দলের অংশগ্রহণে ১৪ দিনের ‘বিতর্ক যুদ্ধ’ শুরু

৯২টি দলের অংশগ্রহণে ১৪ দিনের ‘বিতর্ক যুদ্ধ’ শুরু

চট্টগ্রাম: পাহাড় নদী ফুলের দেশ, চট্টগ্রাম মানে বাংলাদেশ। জলাবদ্ধতা, পাহাড়ধ্বস কিংবা বিলবোর্ডের নগরী চট্টগ্রাম নয়, চট্টগ্রাম হচ্ছে বীরের শহর। “আশার চট্টগ্রাম আগামীর চট্টগ্রাম নিয়ে” এমনি একটি চমকপ্রদ ডকুমেন্টারির প্রদর্শনের মধ্য দিয়ে দেশের বানিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামে শুরু হলো বাংলাদেশের সবচেয়ে মর্যাদাপূর্ণ বিতর্ক প্রতিযোগিতা রবি দৃষ্টি ডিবেট চ্যাম্পিয়নশিপ।

এবারের এ প্রতিযোগিতা চট্টগ্রামের সাংগঠনিক বিতর্ক প্রতিযোগিতার ২৫ বছর।  ১২ আগষ্ট সকালে চট্টগ্রামের থিয়েটার ইনষ্টিটিউট মিলনায়তনে প্রতিযোগিতার উদ্বোধন করেন চট্টগ্রাম সিটি মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন।

অনুষ্ঠানে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন দৈনিক পূর্বকোণের ব্যবস্থাপনা সম্পাদক জসিম উদ্দিন চৌধুরী, রবির কমিউনিকেশনস অ্যান্ড কর্পোরেট রেসপন্সিবিলিটি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট  ইকরাম কবীর, সানশাইন গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ সাফিয়া গাজী রহমান ও চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের শিক্ষা স্ট্যান্ডিং কমিটির সভাপতি নাজমুল হক ডিউক।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি মাসুদ বকুল। বক্তব্য দেন দৃষ্টি চট্টগ্রামের সিনিয়র সহ সভাপতি সাইফ চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক সাবের শাহ, যুগ্ম সম্পাদক সাইফুদ্দিন মুন্না এবং সাংগঠনিক সম্পাদক ও প্রতিযোগিতার সমন্বয়কারী কাজী আরফাত।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে জাতীয় সংগীত পরিবেশনকালে বাংলাদেশের প্রকৃতি, মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক নানা ক্লিপস প্রদর্শন করা হয়। বিশ্ব বরেণ্য কয়েকজন নেতার বক্তব্যের উল্লেখ্যযোগ্য অংশবিশেষ ভিডিও ক্লিপ্স’র মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের সামনে তুলা ধরা হয়।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে আ জ ম নাছির উদ্দীন বলেন, শিক্ষা ও সংস্কৃতির চর্চার মাধ্যমে যারা চট্টগ্রামকে বাংলাদেশ ও পুরো বিশ্বে পরিচয় করাচ্ছে তাদের মধ্যে দৃষ্টি চট্টগ্রাম অনত্যম। চট্টগ্রামের নানাবিধ সমস্যার সমাধানকল্পে তিনি নাগরিকদের নিজ নিজ অবস্থান থেকে সিটি করপোরেশনকে সহযোগিতা করার আহ্বান জানান।

৯২টি দলের অংশগ্রহণে ১৪ দিনের ‘বিতর্ক যুদ্ধ’ শুরুতিনি আরও বলেন, প্রকৃতির বিরুপ আচরণে আজ আমরা ভুক্তভোগী কিন্তু উন্নত চিন্তা ও দক্ষ পরিকল্পনার মাধ্যমে সমস্যাগুলোর সমাধান করে আমাদের এগিয়ে যেতে হবে। চট্টগ্রাম আমাদের শহর, এ শহরকে সাজানোর দায়িত্ব আমাদের।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি দৈনিক পূর্বকোণ’র ব্যবস্থাপনা সম্পাদক জসিম উদ্দীন বলেন দৃষ্টি প্রতিনিয়ত তাদের কর্মকান্ডের মাধ্যমে সৃজনশীল তরুণ উদ্যোক্তা ও নেতা তৈরী করছে। আর এ ধরণের প্রতিযোগিতা ও বিতর্ক চর্চার মাধ্যমে শিক্ষার্থীরা তাদের মেধাকে কাজে লাগিয়ে সামনে এগিয়ে যাচ্ছে।

সানশাইন গ্রামার স্কুলের অধ্যক্ষ শিক্ষাবিদ সাফিয়া গাজী রহমান বলেন সবাই মিলে যখন একসাথে কাজ করব খুব বেশী সময় লাগবে না একসাথে এগিয়ে যেতে।

রবির কমিউনিকেশনস অ্যান্ড কর্পোরেট রেসপন্সিবিলিটি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট  ইকরাম কবীর বলেন ডিজিটাল বাংলাদেশ ও সমৃদ্ধ পৃথিবী গড়ে উঠবে  এই স্বপ্নবাজ ও  দেশপ্রেমিক তরুণদের মাধ্যমে। আর এই প্রজন্মকে গড়ে তোলার দায়িত্ব আমাদের। 

সভাপতির বক্তব্যে দৃষ্টি চট্টগ্রামের সভাপতি মাসুদ বকুল বলেন, ২৫ বছর কম সময় নয়, প্রত্যাশা ও প্রাপ্তির হিসেব মিলানো গেলে দেখা যাবে প্রাপ্তির পরিধিটা অনেক বেশি ভারী। আজ চট্টগ্রামের প্রায় প্রতিটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে বিতর্ক চর্চা হয় এবং বিতর্ক নিয়ে আগ্রহ অনেক বেশি। এ স্বপ্নই দৃষ্টি দেখেছিল গত ২৫ বছর আগে যা আজ সফল।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পরপরই টেন মিনিট স্কুলের সহযোগিতায় ২টি সেমিনার অনুষ্ঠিত হয়। এটি পরিচালনা করেন আইমান সাদিক । এতে ৪১০ জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করে।

স্কুল বিতর্কের ২৫তম এই আয়োজনে চট্টগ্রামের ৪২টি স্কুলের ৪৮টি, ১৪তম বিশ্ববিদ্যালয় বিতর্কে সারা দেশের ২৪টি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৩২টি এবং ১ম কলেজ ইংরেজি বিতর্কে ১২টি কলেজসহ ৭৮টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ৯২টি বিতর্ক দল অংশগ্রহন করছে।

১৪ দিনব্যাপী অনুষ্ঠিত এই প্রতিযোগিতার সমাপনি অনুষ্ঠান আগামী ২৬ আগষ্ট অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশ সময়: ১৯২৩ ঘণ্টা, আগস্ট ১২, ২০১৭

টিএইচ/টিসি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..
Alexa