লাউয়াছড়ায় থামছে না বাণিজ্যিক পান চাষ
[x]
[x]
ঢাকা, বুধবার, ৭ ভাদ্র ১৪২৫, ২২ আগস্ট ২০১৮
bangla news

লাউয়াছড়ায় থামছে না বাণিজ্যিক পান চাষ

ডিভিশনাল সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০১-৩১ ১১:৫৩:২৮ এএম
লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ‘কোর জোনে’ চাষাবাদের প্রস্তুতি। ছবি: বাংলানিউজ

লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ‘কোর জোনে’ চাষাবাদের প্রস্তুতি। ছবি: বাংলানিউজ

মৌলভীবাজার: লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের ‘কোর জোনে’ আবারও পান চাষের উদ্যোগ নিচ্ছেন নৃ-গোষ্ঠীর মানুষেরা। এতে এ বনের প্রাকৃতিক পরিবেশ বিপন্ন ও বিরল বন্যপ্রাণীদের আবাসস্থল ধ্বংস হচ্ছে।

রোববার (২৮ জানুয়ারি) লাউয়াছড়া জাতীয় উদ্যানের বাগমারা ক্যাম্প এলাকায় দেখা যায়, এখানে বসবাসকারী খাসিয়ারা পান চাষের জন্য প্রাকৃতিক লতাগুল্ম এবং নানা প্রকারের গাছগাছালি উপড়ে ফেলেছেন। এছাড়াও মাঝারি গাছগুলোর ডালপালা ছাটাই করে দেওয়া হয়েছে।

শুধু তাই নয়, কিছু কিছু গাছ মেরে ফেলতে নির্মম কৌশল অবলম্বন করা হয়েছে। এসব গাছের গুড়িতে দিনের পর দিন বিষাক্ত কীটনাশক ঢেলে হত্যা করা হয়।
 
বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগ সূত্র জানায়, সংরক্ষিত বনের দু’টি অংশ থাকে। একটি ‘কোর জোন’ অর্থাৎ প্রাকৃতিক বনের সংরক্ষিত পরিবেশ। এখানে কোনো প্রকার গাছ-লতাপাতা কাটা অথবা প্রাকৃতিক পরিবেশ ধ্বংস হয় এমন কিছুই করা যাবে না। অপরটি ‘বাফার জোন’ অর্থাৎ এটি প্রাকৃতিক বনের বাইরের অংশ। এখানে মূলত বিভিন্ন মেয়াদের বনায়ন কার্যক্রম পরিচালিত হয়।

কিন্তু ওই অঞ্চলে বসবাসকারী খাসিয়ারা তাদের বাণিজ্যিক চাষের জন্য জাতীয় উদ্যানের পরিবেশ ধ্বংস করে পান চাষের জায়গা সম্প্রসারণ করে চলেছেন। আর এসব চলছে ‘কোর জোনে’।

বন্যপ্রাণী ব্যবস্থাপনা ও প্রকৃতি সংরক্ষণ বিভাগের সিলেট বিভাগীয় বন কর্মকর্তা (ডিএলও) মিহির কুমার দো বাংলানিউজকে বলেন, আমরা খাসিয়াদের বারবার বলেছি, লাউয়াছড়ার জায়গায় পান চাষ করা কোনোমতেই উচিত নয়। কিন্তু তারা যেহেতু আগে থেকেই ওই এলাকায় পান চাষ করে আসছেন, তাই এটা পুরোপুরি বন্ধ করাও সম্ভব হচ্ছে না। তাই আমাদের নিয়মের সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কিছু কিছু জায়গায় তাদের আমরা চাষাবাদ করতে বলেছি। 

লাউয়াছড়ার নতুন করে কোনো জায়গা যদি তারা চাষাবাদ সম্প্রসারণের চেষ্টা করে, তবে তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া করা হবে বলে জানান ডিএফও মিহির কুমার দো।

বাংলাদেশ সময়: ১১৪৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ৩১, ২০১৮
বিবিবি/এসএইচ/এনএইচটি

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

জলবায়ু ও পরিবেশ বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa