[x]
[x]
ঢাকা, মঙ্গলবার, ১ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৭ জুলাই ২০১৮

bangla news

নীরব শহর কার্ডিফ

মহিবুর রহমান, স্পেশাল করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৬-০৯ ৩:৪৩:৩৫ এএম
বৃষ্টিস্নাত কার্ডিফ। ছবি: মহিবুর রহমান

বৃষ্টিস্নাত কার্ডিফ। ছবি: মহিবুর রহমান

কার্ডিফ থেকে: পনেরো দিন হয়ে গেল আইসিসি চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সংবাদ সংগ্রহ করতে যুক্তরাজ্যে এসেছি। টুর্নামেন্টের কাভারেজের স্বার্থে কার্ডিফ ছাড়াও এই পনের দিন যুক্তরাজ্যের আরও দুটো শহরে আমাকে থাকতে হয়েছে। একটি লন্ডন আর বাকিটি হল বার্মিংহাম। বলে রাখা ভালো, যুক্তরাজ্যের এই তিনটি শহরেই বিশ্ব ক্রিকেটের মহাযজ্ঞ বসেছে।

যা হোক, লন্ডন ও বার্মিংহাম দেখে আমার কাছে মনে হয়েছে বেশ জাঁকজমকপূর্ণ। রাস্তা-ঘাট, স্কুল, কলেজ, রেল, বাস স্টেশন এমনকি পাতাল রেলে গভীর রাতেও মানুষের কমতি নেই। সবসময়ই গমগমে পরিবেশ বিরাজ করে।

কিন্তু কার্ডিফে এসে রীতিমত স্তম্ভিত। কেননা এই শহরটিতে মানুষের আনাগোনা খুবই কম। সকাল থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত যাও দেখা যায়, রাত ৯টা’র পরে সব নীরব।কার্ডিফ

কদাচিৎ দেখবেন আপনাকে কেউ অতিক্রম করে যাচ্ছে। আবার কখনও কখনও এক বা দুই কিলোমিটারের মধ্যেও মানুষের দেখা নেই। বলবেন, তাহলে কি এখানে মানুষ বাস করে না? হ্যাঁ, করে। কিন্তু কাজ শেষে সবাই যে যার যার ঘরে বসে থাকে। একটি শ্রেণি আছে যারা বারে কিংবা ক্যাফেতে বসে ঘণ্টার পর ঘণ্টা সময় কাটিয়ে দেয়।

আর এজন্য দায়ী মূলত এখানকার আবহাওয়া। কেননা কার্ডিফের বর্তমান আবহাওয়া এমন যে সারাদিনই বৃষ্টি হয়। সাথে আছে কনকনে শীতের বাতাস। গড় তাপমাত্রা ১৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস, কখনও ১১ ডিগ্রি। ফলে বাইরে হাঁটা কিংবা কোথাও ঘুরতে যাওয়ার মতো পরিবেশ এখানে মেলা ভার। দিনের প্রায় পুরোটা সময়ই এমন মনখারাপ করা পরিবেশ। আর রাত হলে তো কথাই নেই। সবাই ঘুম।
 
কার্ডিফে গ্রীষ্মকালে বৃষ্টি এবং ঠাণ্ডার এমন অবস্থা দেখে শীতকালের আবহাওয়া সম্পর্কে একটি ধারণা খুব সহজেই পাওয়া যায়। না যেন কি হয়!
এমন বৈরী ও মনখারাপ করা আবহাওয়ার মধ্যে কার্ডিফের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, সুবিশাল আধুনিক এক একটি ভবন ও ঐতিহাসিক স্থাপনাগুলো আপনার মন ভাল করে দেয়ার টনিক হিসেবে কাজ করবে।কার্ডিফ

কেননা শহরের যেদিকেই আপনি তাকাবেন সেদিকেই দেখবেন ঘণ সবুজ গাছ-গাছালিতে ভরা। তারই মাঝে শহর ভেদ করে বয়ে গেছে টাফ নদী। মাথার ওপরে সারাক্ষণ অ্যালবাট্রোসের ওড়াউড়ি ও ডাকাডাকি আপনার পথিক মনের প্রশান্তি দ্বিগুণ বাড়িয়ে দেবে।

স্থাপনার দিক থেকে কার্ডিফে দেখার মতো অনেক কিছুই আছে। কার্ডিফ ক্যাসেল, মিলেনিয়াম স্টেডিয়াম, কার্ডিফ সিটি সেন্টার, ক্লক টাওয়ার অব সিটি হল এবং ওয়েলশ ন্যাশনাল মেমোরিয়াল পর্যটকদের আকর্ষণ করে। এছাড়াও অত্যাধুনিক শপিং মলের চাকচিক্য এবং কার্ডিফ সমুদ্রতটের মনোমুগ্ধকর রুপ আপনাকে বিমোহিত করবেই।

কার্ডিফ নগরির জন্ম ১৯০৫ সালে। এরপর ১৯৫৫ সালে এটি ওয়েলশের রাজধানী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করে। আয়তনের দিক থেকে কার্ডিফ যুক্তরাজ্যের ১১তম বৃহত্তম নগরী হলেও গোটা গ্রেট বিটেনের বাণিজ্য এবং শিল্পের প্রধান নগরী বলে বিবেচিত।          

বাংলাদেশ সময়: ০৩৩০ ঘণ্টা, জুন ৮, ২০১৭
এইচএল/জেডএম         

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa