Alexa
ঢাকা, শনিবার, ১০ চৈত্র ১৪২৩, ২৫ মার্চ ২০১৭
bangla news
symphony mobile

লেখিকা জুবাইদা গুলশান আরা আর নেই

নিউজ ডেস্ক | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৭-০৩-১৯ ৯:৪৩:৫৭ পিএম
লেখিকা জুবাইদা গুলশান আরা আর নেই

লেখিকা জুবাইদা গুলশান আরা আর নেই

ঢাকা: লেখিকা অধ্যাপিকা জুবাইদা গুলশান আরা আর নেই। রোববার (১৯ মার্চ) দুপুর ২টা ৩০ মিনিটে সিদ্ধেশ্বরীর মনোয়ারা হাসপাতালে শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি (ইন্না লিল্লাহে...রাজেউন)। তাঁর বয়স হয়েছিল ৭৫ বছর। দুই কন্যাসন্তানসহ অসংখ্য আত্মীয়স্বজন, ভক্ত ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন তিনি।

তিনি নানা রোগে আক্রান্ত হয়ে দীর্ঘদিন শয্যাশায়ী ছিলেন। তাঁর মরদেহ সিদ্ধেশ্বরীর বাসভবনে নেয়া হয়। গত শতকের ষাটের দশক থেকে তিনি লেখালেখির সঙ্গে জড়িত ছিলেন। সাহিত্যচর্চার জন্য ২০০৫ সালে সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন। এছাড়া জসীম উদ্‌দীন পদকসহ আরো বিভিন্ন পদকে ভূষিত হন তিনি।

কবিতা, গল্প, উপন্যাস ও নাটকসহ সাহিত্যের নানা শাখায় সফল বিচরণ ছিল তাঁর। উপন্যাস, ছোটগল্প, নাটক, শিশুতোষ ছড়া মিলিয়ে তাঁর প্রকাশিত বইয়ের সংখ্যা ৫০-এর বেশি।  শিশুদের জন্য প্রচুর ছড়াকবিতা ছাড়াও তিনি বহু শিশুতোষ রচনা রেখে গেছেন।

তাঁর গদ্যকর্মের মধ্যে রয়েছে: বসতি, আলোটুকুর হাতছানি, নদী তুই কোনঘাটে যাবি, মধ্যরাতের তারা, সাগরসেঁচার স্বাদ, আধারে নক্ষত্র জ্বলে, অগ্নিস্নান,  হৃদয়ে বসতি, বিষাদনগরে যাত্রা, দাওদানবের মালিকানা, প্রমিথিউসের আগুন, ঘৃণার জঠরে জন্ম, ঊষারাগ, অশ্রুনদীর ওপারে, পদ্মা আমার পদ্মা, হৃদয়ে নীল নাম, চৈতী তোমার ভালোবাসা, বিবর্ণ নগরী, মন্দাকিনী, উপন্যাস নদী, ভালোবাসার স্বভাব এমন, সোনালী রঙের নদী প্রভৃতি।

ছোটদের জন্য রচিত ছড়াকবিতা নিয়ে তাঁর প্রকাশিত বইয়ের মধ্যে রয়েছে মজার ছড়া, ছানাপোনাদের ছড়া, কলকাকলির গান, নিঝুম দ্বীপের গল্প কথা, গল্প তবু গল্প নয়, তোমাদের জন্য গল্প, পরিচয় হোক বন্ধুর সাথে, শিশু তোর খেলার সাথী, ছোটদের নাটকমেলা প্রভৃতি।

ছিলেন বাংলাদেশ লেখিকা সংঘের ভাইস চেয়ারম্যান। জাতীয় মহিলা সংস্থা, এশিয়াটিক সোসাইটি, বাংলা একাডেমি, পেন বাংলাদেশ, ঢাকা লেডিস ক্লাব, বাংলাদেশ মহিলা সমিতি প্রভৃতি সংস্থার সদস্য ছিলেন তিনি। সাহিত্য, সমাজ এবং নারী বিষয়ক বিভিন্ন সংগঠনের সাথে জড়িত থেকে তিনি নারীদের অগ্রগতি এবং নারী জাগরণের পক্ষে কাজ করেছেন।

রোববার এশার নাম‍াজের পর জানাজা শেষে বনানী কবরস্থানে তাঁকে দাফন করার কথা।

বাংলাদেশ সময়: ২১৩৯ ঘণ্টা, মার্চ ১৯, ২০১৭
জেএম/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

You May Like..