banglanews24.com lifestyle logo
 
 

চলো আকাশ ছুঁয়ে আসি(শেষপর্ব)

হেজলুল ইসলাম

আগের তিনদিনের রোমাঞ্চকর যাত্রার সঙ্গে যারা ছিলেন, চলুন এবার আপনাদের নিয়ে ভ্রমণের শেষ পর্যন্ত জানি।

দিন ০৪: পাতসিও থেকে সারচু

সকাল বেলা ঘুম থেকে উঠেই আগের মত শুকনো রুটি খেয়েই রওনা হবার সময় পরিচিত হই সেই তাবুবাসীদের সঙ্গে। একটি তাবুতে ছিল কারলো (ইতালি) ও অপর তাবুতে ছিল যাদক দম্পতি (ইসরায়েল)।  এত দিন পর তিন জন সাইকেল সঙ্গী পেয়ে একটু সাহস বেড়ে যায়। কিন্তু বেশিক্ষণ তাদের সঙ্গে সাইকেল চালানো যায়নি, তারা আমাকে পেছনে ফেলে সামনে এগিয়ে যায়। এর কারন তাদের ছিল ট্যুর গাইড যারা তাদের মালামাল বহন কাছিল।  আর আমি আমার ভারি মালপত্র একাই বহন করে ধীরে ধীরে এগুতে থাকি।

পাতসিও থেকে দৃশ্যপট হঠাৎ ই বদলে যায় শুকনো ও ধুসর হিমালয় অঞ্চলে। এ জায়গাটি মূলত সামরিক ঘাঁটি। তাই যথেষ্ট নিরাপদ বোধ করি একা একা যাত্রার এই অংশটুকুতে। এখান থেকে ২ কি:মি: দূরেই বারালাছা লা পাহাড়ের বেস ক্যাম্প। এই বেস ক্যাম্প থেকে ক্রমশ ওপরের দিকে উঠতে থাকি যার উচ্চতা প্রায় ১৬৫০০ফিটেরও বেশি। ধীরে ধীরে যখন চূড়ায় পৌঁছি সেখানে কিছুক্ষণ ঘুমিয়ে নেই। উচ্চতা, অক্সিজেন স্বল্পতা ও ক্লান্তি সব মিলিয়ে  ঘুম যেন অনিবার্য হয়ে পড়ে। এখান থেকে সারচু মাত্র ২৫কি:মি:।

সারচু এ যেন এক যাদুর এলাকা, ভৌগালিক অবস্থান এমনই যে এখানে কোন রকম চেষ্টা ছাড়া সাইকেল আপনা থেকেই প্রায় ২০কি:মি: বেগে চলতে থাকে। কারও মতে এখানে একরকম চৌম্বকীয় ক্ষেত্র আছে যা লোহাযাতীয় যেকোন কিছুকেই টানতে থাকে। জায়গাটি আসলে ঢাল বলেই মূলত এমনটি হয়ে থাকে যা দৃশ্যত সমতল মনে হয়। প্রায় সন্ধে বেলা সারচু গিয়ে প্রথমেই একটি সামরিক ঘাটি চোখে পড়ে। এই যায়গায় এসে সেই তিনজন সাইক্লিস্টের সঙ্গে দেখা হয় আবার। তারা আমার তিন ঘন্টা আগেই এখানে চলে আসে । সিদ্ধান্ত নেই আমরা এখানেই রাত কাটিয়ে পরদিন এই ঘাটি পার হব। 

দিন ০৫: সারচু থেকে পাং

আগের রাতগুলো এতটা ঠান্ডা ছিলনা যেমনটা আজ অনুভূত হচ্ছে । স্বল্প সময়ে সামরিক ঘাঁটিতে কার্যাদি সম্পন্ন করে বেরিয়ে পড়ি নকিলা পাহাড়ের দিকে। পাহাড়টির উচ্চতা প্রায় ১৬,২৩০ফিট। আজকের দিনটা খুবই স্বরণীয় ৩ টি ঘটনার জন্য। প্রথমত, নকিলা পাহাড়ে ওঠার জন্য ২১টি লুপ যা গাতা লুপ নামে পরিচিত, সহজভাবে বললে ২১টি  বিপরীত মূখী রাস্তা যা মাসসিক ও শারিরীক উভয় দক্ষতার জন্য অগ্নিপরীক্ষা। দ্বিতীয়ত, আকষ্মিক ও ভয়াবহ আবহাওয়ার পরিবর্তন এবং তৃতীয়ত, সাইকেলের বা পার্শের প্যাডেল নষ্ট হওয়া।

প্রথমে বা পার্শের প্যাডেলটি সঙ্গে থাকা যন্ত্রপাতির সাহায্যে তার দিয়ে বেধে চালানো শুরু করি। শুরু থেকে ১০কি:মি: এর মধ্যে ১৫০০ফিট উচ্চতায় ওঠার জন্য সেই ২১টি বিপরীত মূখী রাস্তা যে কি ভয়ঙ্কর কষ্টকর তা বলে বোঝাবার মত নয়। একটি শেষ করতে না করতে আরেকটি শুরু হয়ে যায়। এ যেন আর শেষ হয় না....। এরই মধ্যে খাবার পানিও শেষ। রাস্তার পাশে ঝরনার পানি পান করে কোনরকম শেষ হয় গাতা লূপ। এই কষ্টকর লুপ শেষ করে দুপুরের খাবারের বিরতি নেই। সারচু থেকে তৈরি করা খাবার দিয়েই দুপুরের খাবার শেষ করে আবারও শুরু হয় যাত্রা। ধীরে ধীরে আরও ওপরে উঠতে উঠতে প্রায় দুপুর ২টা বেজে যায় নকিলা পাহাড়ের চূড়ায় পৌঁছোতে। সেখানে কিছুক্ষণ ছবি তুলে আবার পাহাড়ের অন্য পাশ ধরে নিচে নামতে শুরু করি।  নিচে নামাটা সব সময়ই  আনন্দদায়ক। কারন, নকিলা পাহাড়ের নিচে নামতে মাত্র ১ঘন্টারও কম সময় লাগে। এভাবেই বেলা ৩টার মধ্যে পৌঁছে যাই হুইস্কি নুল্লাহ। 

হুইস্কি নুল্লাহ থেকে পাং মাত্র ৩২ কি:মি: এবং এর মাঝে আছে আরও একটি ১৬৮০০ফিট উচ্চতার লাচুং চূড়া।

ঘণ্টা খানিকের মধ্যেই ভয়ঙ্কর ভাবে বদলাতে শুরু করে আবহাওয়া। হিমালয়ের পাহাড়ে যে কখন কি হয় বলা খুবই মুশকিল। হঠাৎ করেই বরফ পড়তে শুরু করে ১৫মি: এলাকা জুড়ে। চারদিক সাদা হয়ে উঠে। ভয় শুধু যদি রাস্তা পিচ্ছিল হয়ে যায়, তাহলে চালানো তো দূরের কথা পালাব কোথায়? ওপরওয়ালার বিশেষ রহমতে ১৫মি: পর বরফ ছাড়া ঠান্ডা বাতাস বইতে শুরু করে। এরই মাঝে পানি শেষ হয়ে যাওয়াতে বরফ চুষেই পানির তৃষ্ণা মেটাতে হয়। আনুমানিক ৫টার দিকে এভাবেই প্রকৃতির সঙ্গে লড়াই করে সব শেষে লাচুং চূড়ায় পৌঁছে যাই। এখানে বাতাসে অক্সিজেনের পরিমান ছিল ৫১% প্রায়। এখান থেকে শুধু নিচের দিকেই নামা আর নিচে নামলেই পাং নামক স্থানে রয়েছে আরও একটি সামরিক ঘাঁটি। সব মিলিয়ে শরীর এতটাই ক্লাস্ত ছিল যে বিশ্রাম নেবার সময় কখন যে ঘুমিয়ে যাই বলতে পারি না। এতদিনের জীবনে এত মজার ঘুম কখনোই ঘুমাইনি যতদূর মনে পড়ে।

যখন ঘুম ভাঙ্গে, নিজেকে আবিষ্কার করি সেই সামরিক ঘাঁটির হাসপাতালে এবং সন্ধে হয়ে গেছে ততক্ষণে। প্রথমে বেশ কিছুক্ষণ কিছুই মেলাতে পারিনি, কোথায় আমি? আর হাসপাতালেই বা কেন? পরে ডাক্তারের কাছ থেকে জানতে পারলাম, দুই ইউরোপীয়ান ভ্রমণকারী আমাকে ঘুমস্ত অবস্থায় পায় লাচুং চূড়ায় এবং তারা আমাকে ডাকলে তাদের ডাকে সাড়া না দেয়ায় ওরা ধরে নেয় আমার অবস্থা আশঙ্কাজনক। আর তাই তাদের গাড়িতে করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। ডাক্তার পরীক্ষা করে আমাকে ছেড়ে দেয় আর বলে দেয়, এমন অবস্থায় না ঘুমানোর জন্য। পাহাড়ে এমন জায়গায়  ঘুম পেলে সাইক্লিং বাদ দিয়ে এদিক সেদিক ঘুরাঘুরি করতে। কারন, যেখানে অক্সিজেন কম থাকে, তখন রক্তে ও মাস্তিষ্কেও অক্সিজেন স্বল্পতা দেখা দেয়। এক পর্যায়ে যা ঘুম থেকে মুত্যুর দিকে গড়িয়ে যায়। হাসপাতাল থেকে বিদায় নিয়ে হাসপাতালের কাছেই তাবুতে রাতের খাবার খেয়ে শুয়ে পড়ি।

দিন ০৬: পাং থেকে লাতো

পরের দিন ঠিক ডক্তারের কথা মাথায় রেখেই সকাল ৭টায় আবার সাইকেল নিয়ে বেড়িয়ে পড়ি। প্রথম ১০ কি:মি: সাইক্লিং করে ১৫৬০০ফিট উ”চতার মরি প্লেইন নামক স্থানে পৌঁছি। জায়গাটি দৈর্ঘ্যে ৪০কি:মি ও প্রস্থ্’ ৫০কি:মি: এর মত পাহাড়ে ঘেড়া সমতল ভূমি। প্রায় ৪০কি:মি: সাইক্লিং করে আবার ৬০০ফিট নিচে নেমে আসি। এখানে একটি ঝরনার পাশে পানি আর বিস্কুট খাবার সময় একটি খালি সামরিক গাড়ি এসে থামে। ড্রাইভার গাড়ি থেকে নেমেই তার চুলা, চাল, ডাল দিয়ে খিচুড়ি রান্না শুরু করে দেয়। সে আমাকে শুধু বিস্কুট খেতে দেখে তার খাবার খাওয়ার আমস্ত্রন জানায়। যেহেতু একা চলছি, তাই সেরকম ভারি খাবার বয়ে বেড়ানো একেবারেই অসম্ভব ছিল আমার জন্য। তার এক প্রস্তাবেই সাড়া দিয়ে দেই। মনে হচ্ছিল কত যুগ পরে একটু ভাল খাবার পেলাম। তারপর এখান থেকে আবার শুরু হয় ১৭৫৮০ফিট উচ্চতার তাংলাং চূড়ায় ওঠা। মাত্র ২১ কি:মি: পথ পাড়ি দিলেই পৌঁছে যাব সেই চূড়ায় পৃথিবীর দ্বিতীয় উচু সড়ক পথ। পাহাড়ি নদী, মেঘ, মেঘের ছায়া, বরফ ঢাকা পাহাড় এসব দৃষ্টিকাড়া সৌন্দর্য উপভোগ করতে করতে অবশেষে আমি তাংলাং চূড়ায়। এখান থেকে শুধুই নিচের দিকে নেমে যাওয়া লাতো পর্যন্ত। যতই নিচে নামছিলাম ততই মানুষের সভ্যতার চিহ্ন চোখে পড়ছিল। রুমপটসে, গয়া ও অন্যান্য ছোট ছোট গ্রাম এর পাশ দিয়ে পৌঁছে যাই লাতো। জায়গাটি এতই সুন্দর যে মনে হচ্ছিল সম্পূর্ন যাত্রায় এই জায়গাটিই সবচেয়ে সুন্দর। চারদিকে সবুজ গাছপালা ঘেরা ও পাহাড়ি নদীর পাশে এমনই একটি জায়গা তাবু করে থাকার জন্য উপযুক্ত স্থান। এরই সাথে মাথার ভেতর ঘুরপাক খাচ্ছিল একটাই চিন্তা আর মাত্র ১ দিন আর তার পরই সেই স্বপ্ন পূর্ণ হবে।

দিন ০৭: লাতো থেকে লেহ

৭০কি:মি: মাত্র লেহ ও আমার মাঝে দূরত্ব। ১৫ কি:মি: পর্যন্ত নিচু পথ ধরে এগিয়ে যাওয়া উপসি পর্যন্ত। তারপর ৫০কি:মি: এ মত উচু নিচু পথ ধরে সাইক্লিং করে থিকসে নামক জায়গার দিকে এগুতে থাকি। পথে কারু নামক স্থানে ছোট একটি যাত্রা বিরতি নেই। কারু হচ্ছে সেই যায়গা যেখান থেকে পৃথিবীর তৃতীয় উচু সড়ক পথ চ্যাং লা যাওয়া যায় এবং একই রাস্তা ধরে যাওয়া যায় প্যানগং লেক যা কিনা ১৫০০০ফিট উচ্চতায় অবস্থিত। থিকসে পৌঁছে যাই স্বল্প সময়ের মধ্যেই। তারপর যে শহরটি আছে তা হচ্ছে চংলামসার যা লেহ থেকে মাত্র ৬কি:মি দূরে। ধীরে ধীরে সরকারি ভবন, স্কুল, মন্দির ইত্যাদি চোখে পড়তে থাকে। অবশেষে দুপুর ২টায় লেহ শহরে পৌঁছে যাই। শহরে পা রেখেই দুপুরের খাবার সেরে হোটেল খুজে বের করি এত দিন পর একটু আরাম করে এক রাত থাকার জন্য।

বিকেল বেলা বের হই কর্তৃপক্ষের কাছ থেকে একটি অনুমতি পত্র নেয়ার জন্য। অত্যন্ত হৃদয় বিদারক একটি খবর আমার মনকে একেবারেই ভেঙ্গে দেয়। তা হল বাংলাদেশীরা খারদুং লা যেতে পারবে না। মনে হল, আমরা আমাদের দেশের ভাবমূর্তি এতটাই নিচে নামিয়েছি যে আমরা যেতে পারব না। অবশেষে পরদিন ঠিকই সাইকেল নিয়ে বেরিয়ে পড়ি খারদুং লার পথে। যাই হোক অবশেষে খারদুং লা পৌঁছি। কিন্তু খারদুং লার চূড়ায় যাওয়ার পথেই একটি সামরিক ঘাঁটি থেকে ফিরে আসতে হয়। সান্তনা এতটুকুই যে, সেই চুড়াতে পৌঁছাতে না পারলেও সেই পৃথিবীর সর্বোচ্চ পথে তো গিয়েছি!

শুধু মানালি থেকে লেহ পর্যন্ত শুধু সাইক্লিং করে পৃথিবীর সর্বোচ্চ সড়ক পথে ওঠা নয়। বরং তার চাইতেও বেশি কিছু। এটা সেই সকল মানুষের পুরস্কার, যারা জীবন বাজি রেখে মাথার ঘাম পায়ে ফেলে ব্যতিক্রম কিছু করার ক্ষমতা রাখে। আর বিশ্ববাসীকে দেখিয়ে দেয় আমরা বাংলাদেশীরাও পারি সুযোগ পেলে ভাল, ব্যাতিক্রম কিছু করার।

দেশে ফিরে বন্ধু আর সহকর্মীদের যখন গল্প করছিলাম, তখন বুঝতে পেরেছি আমাদের ছোট্ট এই জীবনে আসলে কী অর্জন করেছি। নিজের চোখে পৃথিবীর অপরূপ রূপ দেখার অভিজ্ঞতার কাছে ১০ দিনেই কষ্ট এখন আর কিছুই মনে হয় না।  

এবারের গন্তব্য নেপাল...

comments powered by Disqus
Bookmark and Share
 
© 2014, All right ® reserve by banglanews24.com