[x]
[x]
ঢাকা, শুক্রবার, ১১ ফাল্গুন ১৪২৪, ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৮

bangla news

প্রতিদ্বন্দ্বী থাকলেও নির্বাচিত হবেন আবদুল হামিদ

ইকরাম-উদ দৌলা, সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০২-০৪ ২:৩৪:৫০ এএম
রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ (ফাইল ফটো)

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ (ফাইল ফটো)

ঢাকা: আগামী ১৮ ফেব্রুয়ারি ‍অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে দেশের রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন। এ নির্বাচনে এখন পর্যন্ত মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করেছেন কেবল বর্তমান রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ। তবে প্রার্থী একাধিক হলেও নির্বাচিত হবেন তিনিই।

নির্বাচন কমিশনের (ইসি) ঘোষিত তফসিল অনুযায়ী, আগামী ৫ ফেব্রুয়ারি নির্বাচনী কর্তা তথা প্রধান নির্বাচন কমিশনার (সিইসি) কেএম নূরুল হুদার কাছে মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন। অন্য কেউ প্রার্থী হতে চাইলে এ সময়ের মধ্যেই মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করে জমা দিতে হবে।
 
সিইসি কেএম নূরুল হুদা এরইমধ্যে জানিয়েছেন, ৭ ফেব্রুয়ারি মনোনয়নপত্র বাছাই করা হবে। আর বাছাইয়ের পর একাধিক বৈধ প্রার্থী থাকলে এবং কেউ প্রার্থিতা প্রত্যাহার না করলে ভোটগ্রহণ হবে ১৮ ফেব্রুয়ারি।
 
ইসির নির্বাচন ব্যবস্থাপনা শাখার জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা বাংলানিউজকে জানিয়েছেন, রাষ্ট্রপতি নির্বাচনের ভোটার তালিকা প্রজ্ঞাপন আকারে প্রকাশ করা হয়েছে। ভোটাররা সবাই জাতীয় সংসদ সদস্য। দু’জন সংসদ সদস্য মৃত্যুবরণ করায় এ নির্বাচনে মোট ভোটার সংখ্যা ৩৪৮ জন। এর মধ্যে কিছু জাতীয় পার্টির সদস্য, কিছু আছেন স্বতন্ত্র সদস্য আর বাকি সব সদস্যই ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের।

বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদকে দেশের সর্বোচ্চ সাংবিধানিক এ পদে নির্বাচনে আবারও মনোনয়ন দিয়েছে আওয়ামী লীগ। আর তাদের ভোটার যেহেতু সিংহভাগ, তাই প্রার্থী যেই হোক না কেন, আবদুল হামিদই আবার নির্বাচিত হচ্ছেন বলে স্পষ্ট সবার কাছে।

সিইসি নূরুল হুদা জানিয়েছেন, যদি একাধিক বৈধ প্রার্থী না থাকেন, অর্থাৎ যদি কেবল আবদুল হামিদই বৈধ প্রার্থী হিসেবে গণ্য হন, তবে ভোটগ্রহণের আর প্রয়োজন হবে না। প্রার্থিতা বাছাইয়ের দিন অর্থাৎ ৭ ফেব্রুয়ারিই হামিদকে রাষ্ট্রপতি পদে বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত ঘোষণা করবে নির্বাচন কমিশন।
 
রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের আইন অনুযায়ী, যদি একাধিক প্রার্থী একই সংখ্যক ভোট পেয়ে সর্বোচ্চ স্থানে থাকেন, তবে তাদের মধ্যে লটারির মাধ্যমে বিজয়ী নির্ধারণ হবে।
 
এরইমধ্যে সরকার দলীয় চিফ হুইপ আ স ম ফিরোজ রাষ্ট্রপতির মনোনয়নপত্র সংগ্রহের পর শুক্রবার (২ ফেব্রুয়ারি) ঘোষণা দিয়েছেন, নির্বাচনে অন্য কোনো প্রার্থী এলেও সমস্যা নেই। ভোটার বেশি হওয়ায় তাদের প্রার্থীই জয়ী হবেন।

রাষ্ট্রপতি পদে প্রার্থী হতে হলে বয়স ন্যূনতম ৩৫ বছর হতে হয়। আর একজন সমর্থক ও একজন প্রস্তাবকের প্রয়োজন পড়ে, যাদেরও হতে হয় সংসদ সদস্য।

বর্তমান রাষ্ট্রপতি আবদুল হামিদের মেয়াদ শেষ হচ্ছে চলতি বছরের ২৩ এপ্রিল। আইন অনুযায়ী, মেয়াদ শেষ হওয়ার পূর্ববর্তী ৯০ থেকে ৬০ দিনের মধ্যে রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচন দেওয়ার বিধান রয়েছে। সে মোতাবেক ২৪ জানুয়ারি রাষ্ট্রপতি পদে নির্বাচনের ক্ষণগণনা শুরু হয়েছে। ২২ ফেব্রুয়ারির মধ্যে নির্বাচনের বাধ্যবাধকতা রয়েছে।

২০১৩ সালের ২৪ এপ্রিল প্রথম মেয়াদে রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব গ্রহণ করেন আবদুল হামিদ। এবারও নির্বাচিত হলে দ্বিতীয় মেয়াদে বঙ্গভবনে থাকবেন ‘ভাটির শার্দুল’।

বাংলাদেশ সময়: ০০১০ ঘণ্টা, ফেব্রুয়ারি ০৪, ২০১৮
ইইউডি/এইচএ/

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

নির্বাচন ও ইসি বিভাগের সর্বোচ্চ পঠিত

Alexa