[x]
[x]
ঢাকা, বুধবার, ৩ শ্রাবণ ১৪২৫, ১৮ জুলাই ২০১৮

bangla news

ডিএনসিসির মেয়র পদে মনোনয়নপত্র কিনলেন জামায়াতের সেলিম 

সিনিয়র করেসপন্ডেন্ট | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০১-১১ ২:৩০:১৪ পিএম
ডিএনসিসি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র কিনছেন প্রার্থীরা/ছবি: বাংলানিউজ

ডিএনসিসি নির্বাচনের মনোনয়নপত্র কিনছেন প্রার্থীরা/ছবি: বাংলানিউজ

ঢাকা: দলের নিবন্ধন বাতিল থাকলেও ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের (ডিএনসিসি) মেয়র পদে মনোনয়নপত্র কিনেছেন জামায়াত প্রার্থী মো. সেলিম উদ্দীন। ২০ দল থেকে তিনি নির্বাচন করতে আগ্রহী। 

মেয়র, ১৮টি কাউন্সিলর পদ এবং ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ১৮টি কাউন্সিলর পদে নির্বাচনের মনোনয়নপত্র কেনা শুরু করেছেন প্রার্থীরা। 

মঙ্গলবার এ নির্বাচনের তফসিল ঘোষণা করে নির্বাচন কমিশন (ইসি)। বৃহস্পতিবার (১১ জানুযারি) আগারগাঁওয়ের নির্বাচন প্রশিক্ষণ ভবনের রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে অনেককে মনোনয়নপত্র কিনতে দেখা গেছে। অনেক প্রার্থী আবার প্রতিনিধি পাঠিয়ে খোঁজ নিচ্ছেন।

কাউন্সিলর পদে ৫৪ নম্বর ওয়ার্ড থেকে নির্বাচনে প্রার্থী হতে মনোনয়নপত্র নিয়েছেন মো. ইয়াকুব আলী। তিনি বিলুপ্ত ইউনিয়ন পরিষদের 'মেম্বার' ছিলেন।

সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদেও প্রার্থী জাকিয়া সুলতানা তার প্রতিনিধি পাঠিয়ে খোঁজ নিলেন কীভাবে মনোনয়নপত্র দাখিল করতে হবে।

মেয়র পদে বাংলাদেশ জামায়াত ইসলামীর প্রার্থী মো. সেলিম উদ্দীন তার আইনজীবী পাঠিয়ে মনোনয়নত্র কিনেছেন। গোলাম কিবরিয়া নামের ওই আইনজীবী বাংলানিউজকে জানান, সেলিম উদ্দীন মূলত বিএনপি নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোট থেকে প্রার্থী হতে চাচ্ছেন।

এদিকে নির্বাচন কমিশনের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, জামায়াতের কোনো প্রার্থী দল থেকে মনোনয়ন নিতে পারবেন না। কেননা দলটির নিবন্ধন উচ্চ আদালত বাতিল করেছে। এক্ষেত্রে জামায়াত কোনো প্রার্থী দিলে তা হবে স্বতন্ত্র প্রার্থী।

গোলাম কিবরিয়া জানান, ঢাকা মহানগর উত্তর জামায়াতের আমির সেলিম উদ্দীন।

গতবার ডিএনসিসি নির্বাচনে জামায়াতের কোনো প্রার্থী ছিল না।

আগামী ২৬ ফেব্রুয়ারি এ নির্বাচনের ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হবে। মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ সময় ১৮ জানুয়ারি।

সম্প্রতি অনুষ্ঠিত নির্বাচন কমিশনের সংলাপে এসে সুশীল সমাজ, নারী নেত্রী ও গণমাধ্যম প্রতিনিধিরা জামায়াত নেতারা যাতে কোনো নির্বাচনে অংশ নিতে না পারে সে সুপারিশ করেছেন। যদিও প্রার্থী হওয়ার যোগ্যতা অনুযায়ী, বাংলাদেশের কোনো নাগরিকের স্বতন্ত্র থেকে নির্বাচনের প্রার্থী হতে বর্তমান আইনে কোনো বাধা নেই।

ডিএনসিসির সাবেক মেয়র আনিসুল হকের মৃত্যুতে পদটি শূন্য ঘোষণা করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। আর দুই সিটির নতুন ১৮টি করে ৩৬টি ওয়ার্ড সৃষ্টি হয় সম্প্রতি। তাই ডিএনসিসির মেয়র পদ, ১৮টি কাউন্সিলর পদ, ৬টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদ এবং ডিএসসিসির ১৮টি কাউন্সিলর পদ, ৬টি সংরক্ষিত কাউন্সিলর পদে ভোটগ্রহণের আয়োজন করছে নির্বাচন কমিশন।
 
বাংলাদেশ সময়: ১৪২৫ ঘণ্টা, জানুয়ারি ১১, ২০১৮
ইইউডি/এএ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa