[x]
[x]
ঢাকা, শনিবার, ৬ শ্রাবণ ১৪২৫, ২১ জুলাই ২০১৮

bangla news

ক্রোয়েশিয়ার এখানে আসারই কথা ছিল না

মো: মোয়াজ্জেম হোসেন, নিউজরুম এডিটর | বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম
আপডেট: ২০১৮-০৭-১২ ৬:৩৯:০৩ পিএম
এই ক্রোয়েশিয়া দলের এতদূর আসার কথাই ছিল না-ছবি: সংগৃহীত

এই ক্রোয়েশিয়া দলের এতদূর আসার কথাই ছিল না-ছবি: সংগৃহীত

লুকা মদ্রিচের এখানে থাকার কথা ছিল না। ক্রোয়েশিয়ার স্বাধীনতা যুদ্ধের সময় জন্ম নেওয়া মদ্রিচ তার দাদাকে মাঠে কৃষিকাজ করা অবস্থায় খুন হতে দেখেছেন। এ কারণে তার পরিবারকে অভিবাসী হয়ে দ্রুতই দেশ ছাড়তে হয়। বোমা, বুলেট আর ল্যান্ড মাইন ভর্তি এক অঞ্চলে ফুটবল খেলার স্বপ্ন নিয়ে বেড়ে উঠেন এ রিয়াল তারকা।

দেজান লোভরেন এবং দানিয়েল সুবাসিচেরও এ ভয়ানক ধ্বংসের মধ্যে বেঁচে থাকার কথা ছিল না। ইভান রাকিতিচের গায়ে ক্রোয়েশিয়ান জার্সি উঠার কথা ছিল না। সুইজারল্যান্ডে এক ক্রোয়েশিয়ান অভিবাসী পরিবারে জন্ম নেওয়া রাকিতিচ যুব পর্যায় পর্যন্ত সুইসদের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। সেদিক থেকে সুইজারল্যান্ডের সিনিয়র দলে খেলাই তার জন্য সহজ উপায় ছিল। কিন্তু, তিনি ক্রোয়েশিয়া দলের হয়ে খেলার মতো পাগলাটে সিদ্ধান্ত নিলেন।
 
সবচেয়ে বড় কথা ক্রোয়েশিয়া দলটিরই রাশিয়াতে থাকার কথা ছিল না। ফিনল্যান্ডের বিপক্ষে বাছাইপর্বের ম্যাচে শেষ মুহূর্তের গোলে ড্র নিয়ে এমনকি তাদের প্লে-অফ খেলার জন্যও ইউক্রেনের বিপক্ষে ম্যাচে ফলাফল প্রয়োজন হয়।
 
সেই সময়, ক্রোয়েশিয়ার ফুটবল ফেডারেশন দলের কোচকে বরখাস্ত করে বর্তমান কোচ জাৎকো দালিচের কাঁধে দায়িত্ব সপে দেয়। সেই সময় আবুধাবিতে কোচিং করাচ্ছিলেন দালিচ। এ ধরনের পরিবর্তন কোনো দলের বিশ্বকাপ মিশন সমাপ্ত করে দেওয়ার জন্য যথেষ্ট।

ক্রোয়েশিয়ার ‘নতুন সোনালী প্রজন্ম’ তখন প্রায় শেষের পথে। মদ্রিচ, রাকিতিচ ও মারিও মান্দজুকিচের বয়স তখন ৩০ ছুঁইছুঁই। বাছাইপর্বের গুরুত্বপূর্ণ ওই ম্যাচে ইউক্রেনকে ২-০ গোলে হারিয়ে দেয় ক্রোয়েশিয়া।

বাছাইপর্ব পার হতে প্লে-অফ ম্যাচে গ্রিসের মুখোমুখি হয় ক্রোয়েশিয়া। গ্রিস তখন তাদের দলকে নতুন করে গড়েছে, যার ফলে একঝাঁক তরুণ ফুটবলার ছিল ওই দলে। কিন্তু  অভিজ্ঞ ক্রোয়েটরা প্লে অফের দুই লেগ মিলিয়ে ৪-১ গোলের জয় নিয়ে রাশিয়ায় যাওয়ার টিকিট নিশ্চিত করে।

এমনকি বিশ্বকাপ বাছাইপর্ব পার হওয়ার পরও বিশেষ কিছু করার কথা ছিল না ক্রোয়েশিয়ার। গ্রুপ পর্বের প্রথম ম্যাচেই তাদের প্রতিপক্ষ ছিল আফ্রিকান ফুটবল পরাশক্তি নাইজেরিয়া। শক্তিমত্তায় দুই দল প্রায় সমান হলেও ম্যাচটি ২-০ গোলে জিতে যায় ক্রোয়েশিয়া।

ওই জয়ের পর, আর্জেন্টিনার বিপক্ষে ম্যাচে একই ঘটনার পুনরাবৃত্তি ঘটানোর কথা ছিল না ক্রোয়েটদের। আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক উইলি কাবায়েরোর মারাত্মক ভুল না হলে আন্তে রেবিচের গোলে শুরুতেই এগিয়ে যাওয়া হতো না ক্রোয়েশিয়ার। ক্যারিয়ারের সেরা খেলাটা সেদিনই খেলার কথা ছিল না লুকা মদ্রিচের। তার কথা অবিশ্বাস্য গোলে ২-০ ব্যবধানে এগিয়ে যাওয়ার পর ইভান রাকিতিচের দুর্দান্ত গোলে ফিনিশিং টানার কথাও ছিল না। কিন্তু এসবই ঘটল আর ক্রোয়েশিয়া ৩-০ গোলে জিতে গেলো।

শেষ ষোলোর ম্যাচে ডেনমার্কের বিপক্ষে জয়টা অনুমিতই ছিল। কিন্তু অতিরিক্ত সময়ে লুকা মদ্রিচের পেনাল্টি মিস করার পর জয় নিয়ে সন্দিহান ছিলেন খোদ ক্রোয়েট সমর্থকরাই। এমন ভয়ানক ভুলের কারণে বিশ্বকাপ মিশনই শেষ হয়ে যাওয়ার কথা ছিল ক্রোয়েশিয়ার।

পেনাল্টি-শুটআউটে স্পট কিক থেকে মদ্রিচের প্রায়শ্চিত্ত করার কথা ছিল না। সুবাসিচ এক ম্যাচেই তিন স্পট কিক থামিয়ে দেওয়ার কথা ছিল না। রাকিতিচের শট গোলরক্ষকের হাত গলে গোলবারে ঢুকে যাওয়ার কথাও ছিল না।

কোয়ার্টার ফাইনালে, দেনিস চেরিশভের বিস্ময়কর গোলের পিছিয়ে যাওয়ার পর রাশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচ থেকেই বিদায় নেওয়ার কথা ছিল ক্রোয়েশিয়ার। আন্দ্রে ক্রামারিচের সমতায় ফেরানো গোলটিও হওয়ার কথা ছিল না।

অতিরিক্ত সময়ে, গোলরক্ষক সুবাসিচ ও স্ট্রাইকার মান্দজুকিচের ইনজুরি সত্ত্বেও খেলা চালিয়ে যাওয়ার কথা ছিল না। ইনজুরিতে এক পা প্রায় অকার্যকর হয়ে যাওয়ার পরও সুবাসিচের পেনাল্টি শট আটকে দেওয়ারও কথা ছিল না। আর ফের রাকিতিচের পেনাল্টি শটে খেলার নিষ্পত্তি হওয়ারও কথা ছিল না।

সেমিফাইনালের আগে, হাঁটুর ইনজুরির কারণে ক্রোয়েশিয়ার সেরা ডিফেন্ডার সিমে ভ্রাসালিকোর খেলার কথা ছিল না। অন্যদিকে বিতর্কিত কাণ্ডে আরেক সেরা ডিফেন্ডার দোমাগোজ ভিদারও খেলার সম্ভাবনা ছিল কম।

ইংলিশ তারকা কিয়েরেন ত্রাপিয়ার ফ্রিক কিক থেকে বিস্ময়কর গোলের পর ক্রোয়েশিয়ার ম্যাচে ফেরার কথা ছিল না। এ ম্যাচেই ক্যারিয়ারের সেরা খেলা দেখানোর কথা ছিল না ইভান পেরিসিচের। তার অমন কারাতে কিকে গোল করারও কথা ছিল না।
 
জর্ডান পিকফোর্ডের সঙ্গে সংঘর্ষের পর মার মান্দজুকিচের মাঠেই থাকার কথা ছিল না। আর অবশ্যই ম্যাচের ফল নির্ধারণী গোলটি তার করার কথা ছিল না এবং ইংলিশদের বিদায়ঘণ্টাও বাজার কথা ছিল না।

এখন ফাইনাল খেলতে মস্কোয় থেকে যাচ্ছে ক্রোয়েশিয়া। ফাইনালে তারা ফ্রান্সের মুখোমুখি হবে, যারা বিশ্বকাপের ফাইনালে উঠার পথে সব প্রতিপক্ষকে হারের স্বাদ দিয়ে এসেছে।

ক্রোয়েশিয়ার বিশ্বকাপ জেতার কথা না। একথা তাদের বলে দেখুন।

বাংলাদেশ সময়: ১৮৩০ ঘণ্টা, জুলাই ১২, ২০১৮
এমএইচএম/এসএইচ

বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

Alexa